মোবাইলে বেশি কথায় উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি

 

:: স্বাস্থ্য ডেস্ক ::

মোবাইল ফোনে যারা বেশি সময় ধরে কথা বলেন তাদের জন্য দুঃসংবাদ। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, মোবাইলে বেশি কথা বললে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বাড়ে। এতে কার্ডিওভাসকুলার-জাতীয় রোগের ঝুঁকিও রয়েছে।

সানফ্রান্সিসকোয় আমেরিকান সোসাইটি অব হাইপারটেনশনের বার্ষিক সভায় এই গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

ইতালির পিয়াসেনজার গুগলিলমো দ্য স্যালিসিটো হাসপাতালের গবেষকরা গবেষণাটি পরিচালনা করেন। তারা এক মিনিট অন্তর ৯৪ জনের রক্তচাপ রেকর্ড করেন। যাদের রক্তচাপের রেকর্ড নেয়া হয়েছে, তাদের বয়সের গড় ৫৩ বছর।

গবেষকরা রোগীকে নিজের চেম্বারে একটি আরামদায়ক চেয়ারে বসতে দেন এবং প্রথমবার রক্তচাপের রেকর্ড গ্রহণের পর রোগীকে একাকী রেখে বাইরে যান।

গবেষণার অংশ হিসেবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে রক্তচাপ রেকর্ডের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর প্রত্যেক রোগীকে কমপক্ষে তিনবার ফোন করা হয়।

ফলাফলে দেখা যায়, ফোন রিসিভ করার সময় রোগীর রক্তচাপ বেশ খানিকটা বেড়ে যাচ্ছে। সাধারণ সময়ে যাদের রক্তচাপ ১২১/৭৭ রেকর্ড হয়, সেলফোন রিসিভের সময় একলাফে তা ১২৯/৮২তে উন্নীত হয়।

আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের মতে, কোনো ব্যক্তির রক্তচাপ ১২০/৮০-এর নিচে থাকলে তিনি সুস্থ বলে বিবেচিত।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) থেকে প্রাপ্ত তথ্য পর্যালোচনা করেও একই ধরনের ফল পেয়েছে আমেরিকার সেন্সাস ব্যুরো। তাদের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, যে দেশের মানুষ বেশি হারে সেলফোন ব্যবহার করে, সে দেশে উচ্চরক্তচাপজনিত সমস্যা বেশি।


এক্ষেত্রে আলাদাভাবে উল্লেখ করা হয় রাশিয়ার কথা। রাশিয়া ইউরোপের সবচেয়ে বড় সেলফোন বাজার। গত বছরের জুন পর্যন্ত দেশটিতে সেলফোনের সংযোগ ছিল ২২ কোটি ৭১ লাখ; যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ১৬০ শতাংশ।


দেশটিতে ৫০ বছরের বেশি বয়সের মানুষের মধ্যে উচ্চরক্তচাপজনিত সমস্যা একটি সাধারণ বিষয়। রাশিয়ায় ৫০-৬৯ বছর বয়সী মানুষের মধ্যে অর্ধেকই উচ্চরক্তচাপজনিত সমস্যায় আক্রান্ত। ৭০ বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে এ হার ৬৬ শতাংশেরও বেশি।


গবেষণায় দেখা যায়, যেসব মানুষ দিনে ৩০টিরও বেশি কল রিসিভ করেন, অন্যদের তুলনায় তাদের উচ্চরক্তচাপের ঝুঁকি বেশি। এমনকি মধ্যম মানের উচ্চ রক্তচাপে ভোগা রোগীদের রক্তচাপ হঠাৎ বেড়ে গেলে সেলফোন বন্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়েছে গবেষণাপত্রটিতে।


বাংলাদেশ স্থানীয় সময় : ২৩১০ ঘন্টা, জুলাই ১৫, ২০১৩
আরএম