প্রচ্ছদ অর্থনীতি

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশের কালো অর্থনীতি!

srsবিএ নিউজ: ১৯ জুন দৈনিক পত্রিকার শিরোনাম, সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ৪ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) প্রকাশিত ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১৪ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

পিলে চমকে ওঠার মতো তথ্যটি এ বার্তাই দেয়, সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশের কালো অর্থনীতির একটি অভয়ারণ্য গড়ে উঠেছে। অর্থপাচারের ওপর তথ্য প্রকাশের ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি বা জিএফআইর মতে, বাংলাদেশ থেকে বিদেশে টাকা পাচার এক বছরের ব্যবধানে তিনগুণ বেড়েছে। শুধু ২০১২ সালেই দেশ থেকে ১৭৮ কোটি ডলার বা প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়েছে। ২০১০ সালে যেখানে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের ২০০৬ কোটি টাকা জমা ছিল। ২০১৪ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৩০০ কোটি টাকা। ধারণা করা হচ্ছে, এ বছর তা আরো বাড়বে। বলার অপেক্ষা রাখে না, সুইস ব্যাংকে জমাকৃত এই টাকার একটা বিরাট অংশই ‘হারাম টাকা’ বা ‘কালো টাকা’। দেখা গেছে, এই টাকার উৎস জানার ক্ষেত্রে দেশের সরকার অসহায়! ঢাকার একটি দৈনিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক ম. মাহফুজুর রহমানের বক্তব্যে সেই অসহায়ত্বই ফুটে উঠেছে। আরো একটি বিষয় প্রমাণ হয়, বাংলাদেশের কর ফাঁকি, দুর্নীতি কিংবা মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ ব্যবস্থা এতটাই দুর্বল যে তা সুইস ব্যাংকে এই কালো অর্থনীতি গড়ে তুলতে ভূমিকা রেখেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে লুটেরা অর্থনীতি পুরো দেশটাকেই একদিন সুইস ব্যাংকে বন্ধক রেখে দেবে। তখন এই বন্ধক ছাড়ানোর জন্য কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না।

Adil Travel Winter Sale 2ndPage

অর্থনীতি : সকল সংবাদ

আজকের এই দিনে
লোকে-যারে-বড়-বলে-বড়-সেই-হয়
আবদুল আউয়াল ঠাকুর : বাংলা প্রবচন হচ্ছে, আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যা বড় বলে বড় সেই হয়। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন হওয়ার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি কেন্দ্র করে এমন কিছু...