পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে 'গোঁজামিল' নীতি

du fবিএ নিউজ: সেশনজটের দায় এড়াতে 'গোঁজামিল' দিয়ে চলছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম। কোর্স শেষ না করেই হুটহাট পরীক্ষা, অসংলগ্ন ফলাফলসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিরুদ্ধে। স্কুল, কলেজ ও অন্যান্য প্রাইভেট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেও ঘটছে একই ঘটনা। এরই মধ্যে এসএসসি সমমান পরীক্ষায় ঘটেছে ফলাফল বিপর্যয়। এর কারণ হিসেবে সরকারের পক্ষ থেকে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা টানা হরতাল-অবরোধকেই দায়ী করা হয়েছে। একই সুর দিচ্ছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও।

 তবে শিক্ষার্থীদের মতে কেবল হরতাল-অবরোধ নয়, বরং শিক্ষকদের অতিমাত্রায় রাজনীতি, ক্লাস নিয়ে উদাসীনতা, কথায় কথায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলন এবং সরকারি ছুটি ছাড়াও বিভিন্ন ইস্যুতে অপ্রয়োজনীয় ছুটির কারণে তীব্র সেশনজটে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের দোষ ঢাকতেই গোঁজামিল নীতি অনুসরণ করছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চলতি শিক্ষা বছরে সরকারিসহ প্রাতিষ্ঠানিক ছুটি ছিল প্রায় আড়াই মাস। বিএনপি-জামায়াতের হরতাল-অবরোধের কারণে চলতি বছরের শুরুতে অন্তত দেড় মাস স্বাভাবিক ক্লাস কার্যক্রম বিঘি্নত হয়। এ ছাড়া চলতি শিক্ষা বছরে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে ছাত্রদলের আন্দোলন, ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে বাম সংগঠনগুলোর আন্দোলন, পয়লা বৈশাখে টিএসসিতে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় আন্দোলন, শিক্ষকদের ধর্মঘটসহ নানাবিধ ইস্যুতে অস্থিতিশীল থাকে ক্যাম্পাস।

তবে এ সময়ে প্রতিটি বিভাগে নিয়মিত ক্লাস না চললেও চলেছে পরীক্ষা। আর সে কারণেই ঠিকঠাক ক্লাস না পেলেও পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়েছে শিক্ষার্থীদের। নানা কারণে ফলাফল বিপর্যয়ও ঘটেছে কম নয়। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের প্রথম বর্ষ ফাইনাল পরীক্ষায় ২৩০ শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৯৩ জনই ফেল করেন। পাস করেন মাত্র ৭৭ জন। এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, 'সিমেস্টার পদ্ধতিতে মিডটার্ম বা ইনকোর্স পরীক্ষার ক্ষেত্রে তড়িঘড়ি করে পরীক্ষা নেওয়ার প্রবণতা থাকলেও ফাইনাল পরীক্ষায় এমনটা হয় না। আজকাল শিক্ষক-শিক্ষার্থী উভয়েই চায় তাড়াতাড়ি পরীক্ষা হোক।' তবে এটি হতে গিয়ে পর্যাপ্ত ক্লাস না হওয়া, প্রকৃত জ্ঞান অর্জনে ঘাটতি কিংবা ফলাফল বিপর্যয়ের ঘটনা প্রসঙ্গে উপাচার্য বলেন, 'সাধারণত এমনটি হওয়ার কথা নয়। সুনির্দিষ্ট কোনো বিভাগে এমন ঘটে থাকলে বিষয়টি দেখব।'

ছুটি ও অস্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে অভিযোগ সবচেয়ে বেশি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে। এখানে চলতি শিক্ষা বছরে (জুলাই, ২০১৪ থেকে জুন, ২০১৫) মোট কার্যদিবসে প্রাতিষ্ঠানিক ছুটিই ছিল ১২৩ দিন। এর মধ্যে এক মাস ছিল গ্রীষ্মকালীন ছুটি। এ ছাড়াও শিক্ষক খুন, হরতাল-অবরোধ, রাজনৈতিক হানাহানি, আন্দোলন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক খেলাধুলা, সমাপনীসহ বিভিন্ন ইস্যুতে 'অঘোষিত ছুটি' থাকে অন্তত আরও তিন মাস। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্লাস হয়েছে দাবি করা হলেও বেশির ভাগ বিভাগের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, কোনোরকম নোটিস ছাড়াই শিক্ষকরা দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ রেখেছেন। বছরের বাকি পাঁচ মাসে ইনকোর্স, টিউটরিয়াল, স্পেশাল অ্যাসাইনমেন্টের সঙ্গে ক্লাস করতে গিয়ে তাল হারিয়ে ফেলেন শিক্ষার্থীরা। জানা গেছে, প্রতিটি ১০০ নম্বরের কোর্সে ২০ নম্বরের ইনকোর্স পরীক্ষা বা অ্যাসাইনমেন্ট আগেই নেওয়ার কথা থাকলেও অনেক বিভাগের শিক্ষকই তা না নিয়ে নিজ ক্ষমতাবলে ইচ্ছামতো একটি নম্বর দিয়ে দিচ্ছেন। এ ছাড়া কোর্স বা ক্লাস সমাপ্তির অন্তত ৩০ দিন পর পরীক্ষা নেওয়ার নিয়ম থাকলেও তা মানার বালাই নেই। পরীক্ষার এক সপ্তাহ আগেও ক্লাস নিচ্ছে অনেক বিভাগ। বিশেষ করে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, সমাজকর্ম, লোকপ্রশাসন, পরিসংখ্যানসহ আরও বেশকিছু বিভাগের শিক্ষার্থীরা এ অভিযোগের কথা জানান।

 কারিকুলাম অনুযায়ী পূর্বনির্ধারিত টপিকের ওপর দু-একটি ক্লাস কিংবা শিট দিয়েই কোনোরকম ক্লাস শেষ করেছে এসব বিভাগ। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শিক্ষার্থীদের ঘাড়ে দোষ চাপান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ড. চৌধুরী সারোয়ার জাহান। তিনি বলেন, সারা বছর পড়াশোনা না করলে শিক্ষার্থীদের এমন অভিযোগ তো আসবেই। বিদেশে পরীক্ষার আগের দিনও ক্লাস হয়। শিক্ষার্থীরা ক্লাসের পড়া ক্লাসেই পড়ে ফেললে আর এমনটি ঘটে না। তার পরও শিক্ষার্থীদের কোনো যুক্তিসঙ্গত অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট বিভাগ বা ডিনের কাছে অভিযোগ করার পরামর্শ দেন তিনি। প্রাতিষ্ঠানিক ছুটি এত দীর্ঘ হওয়া প্রসঙ্গে উপ-উপাচার্য বলেন, শিক্ষকদেরও ছুটির প্রয়োজন আছে। তাদেরও পড়াশোনা করার দরকার হয়। একইভাবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘোষিত ছুটি ছিল প্রায় দুই মাস। আর 'অঘোষিত' ছুটির ঘটনাও কম নয়। শুধু হরতাল-অবরোধে সম্পূর্ণ ক্লাস বন্ধ ছিল অন্তত এক মাস। এ সময় অফিস খোলা থাকলেও শিক্ষকরা ক্লাস নিতে পারেননি। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, এসব ছুটির কারণে নির্দিষ্ট ক্রেডিট অনুযায়ী নির্ধারিত ক্লাস না নিয়েই পরীক্ষা নিয়েছে সমাজবিজ্ঞান, আইন, ইসলামের ইতিহাস, নৃ-বিজ্ঞানসহ আরও কয়েকটি বিভাগ।

দেশের অন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে খোঁজ নিয়ে একই চিত্র পাওয়া গেছে। গতকালও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অপসারণের দাবিতে ক্লাস বন্ধ করে আন্দোলনে নামেন শিক্ষকরা। এ ছাড়া সাম্প্রতিককালে স্বতন্ত্র পে-স্কেলের দাবিতে কেন্দ্র থেকেই সারা দেশে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন শিক্ষকরা।

অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও একই অবস্থা : রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্কুল, কলেজ বা সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেও একই চিত্র। এসএসসি সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ এবং পাসের হার দুটোই কমছে। হরতাল-অবরোধে তেমন ক্লাস হয়নি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অন্তর্ভুক্ত সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোয়। রাজধানীর নামিদামি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষকরা দেশব্যাপী রাজনৈতিক কর্মসূচি চলাকালে বিদেশ ভ্রমণ করে বেড়িয়েছেন। পরে নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষা শেষ করতে ইচ্ছামতো পড়াশোনা চাপিয়ে দিয়েছেন শিশুদের ওপর। ছুটির দিনেও ছুটি পায়নি শিশুরা। এত চাপ নিয়ে আশানুরূপ ফলও করতে পারেনি শিক্ষার্থীরা।

Bangla-Kotir
line seperator right bar ad
sunnati hazz
line seperator right bar ad
RiteCareFront
line seperator right bar ad
Adil Travel Winter Sale front
line seperator right bar ad
starling front
line seperator right bar ad

Prothom-alo Ittafaq Inkilab
amardesh Kaler-Kontho Amader-Somay
Bangladesh-Protidin Jaijaidin Noya-Diganto
somokal Manobjamin songram
dialy-star Daily-News new-york-times
Daily-Sun New-york-post news-paper

line seperator right bar ad

 

 Big

line seperator right bar ad
Rubya Front
line seperator right bar ad

Motin Ramadan front

line seperator right bar ad
 ফেসবুকে বিএনিউজ24
line seperator right bar ad
   আজকের এই দিনে
লোকে-যারে-বড়-বলে-বড়-সেই-হয়
আবদুল আউয়াল ঠাকুর : বাংলা প্রবচন হচ্ছে, আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যা বড় বলে বড় সেই হয়। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন হওয়ার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি কেন্দ্র করে এমন কিছু...
line seperator right bar ad
banews ad templet
 
 
line seperator right bar ad
   ফটোগ্যালারি
  আরো ছবি দেখুন -->> 
line seperator right bar ad
 
    পুরাতন সংখ্যা
banews ad templet