প্রচ্ছদ বিনোদন

পোড়ামনে ভালোবাসার মাহি

 

:: শরাফত হোসেন ::

নজরকাড়া গ্ল্যামার আর হৃদয়ছোঁয়া অভিনয় দিয়ে ঢালিউডে এরই মাঝে নিজের অবস্থান করে নিয়েছেন মাহিয়া মাহি। ‘ভালোবাসার রং’ নিয়ে দাপুটে আবির্ভাবের পর ‘অন্যরকম ভালবাসা’ এরই মধ্যে নি­জের যোগ্যতার প্রমাণ তিনি রেখেছেন। আগামী দিনগুলোতেও মাহি দর্শক হৃদয় দাপিয়ে বেড়াবেন এতে কোন সন্দেহ নেই।

আজ ১৪ জুন শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত মাহির তৃতীয় ছবি ‘পোড়ামন’। বান্দরবানের সত্য ঘটনা অবলম্বনে ছবির কাহিনি লিখেছেন আবদুল্লাহ জহীর। বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন সায়মন সাদিক, আনিসুর রহমান মিলন, আলীরাজ, বিপাশা, ডন, রতন, মনিরা মিঠু, মিশা সওদাগর প্রমুখ।

প্রথম ছবিতেই মাহি দেখিয়েছেন প্রতিভার ঝলক। এরপর ‘অন্যরকম ভালোবাসা’য় মাহির দুর্দান্ত অভিনয়শৈলী কৌতুহল তৈরি করে দর্শকের মাঝে। হাল আমলে ছবি নিয়ে দারুণ ব্যস্ত তিনি। শাহীন সুমনের নতুন ছবির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজশাহীতে। শ্যুটিংয়ের ফাঁকে মুঠোফোনে কথা হয় তার সাথে।

প্রতিমূহুর্ত’কে মাহি জানান ‘ভালো ফসল পাওয়ার জন্যে বীজ চাষ করার আগে সময় নিয়ে যত্ন সহকারে সঠিক পরিচর্যা করতে হয়। প্রথম অবস্থায় দর্শকের যে বিপুল সাড়া পেয়েছি, তাদের প্রত্যাশা পূরণে আমিও যত্ন নিয়ে বেছে বেছে কাজ করতে চাই। আমার কাছে কোয়ানটিটির চাইতে কোয়ালিটির গুরুত্ব অনেক বেশি। দুনিয়াতে সবকিছুরই ফিডব্যাক আছে, আমার বিশ্বাস-আমি যদি কাজটাকে ভালোবাসি সেখান থেকে প্রতিদান পাবই। আর কাজের ক্ষেত্রে কমিটমেন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমি কমিটমেন্ট রক্ষা করে কাজ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাই।’ প্রবল আত্মবিশ্বাসের সাথেই কথাগুলো বললেন তিনি।

নাচ-গানের প্রবল অনুরাগী চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। ভালো নাচতে জানেন, জানেন গাইতেও মায়ের উৎসাহ এবং নিজের আগ্রহে ছোটবেলা থেকেই চর্চা করে আসছেন। প্রশিক্ষণ নিয়েছেন বুলবুল ললিত কলা একাডেমি, উত্তরার মোহনা একাডেমি ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানে। পরবর্তিতে অভিনয়েও প্রশিক্ষণ নেন। স্কুল-কলেজে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে নিয়মিত অংশ নিয়ে কৃতিত্বের সাক্ষর রাখেন মাহি। চলচ্চিত্রে অভিনয় করবেন এমনটা কখনো ভাবেননি তিনি। অষ্টম শেণীতে পড়াকালীন সময়ে রাস্তায় একটি বিলবোর্ড দেখে তারকা হবার ইচ্ছে জেগেছিল মনে।

চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরুর গল্পটা মাহির ভাষায়, ‘একটি টিভি নাটকে দেখলাম নায়িকার বিশাল ছবি তার বেডরুমে রাখা, বিষয়টি আমাকে প্রবলভাবে আকৃষ্ট করল, বেডরুমে আমার বড় একটি ছবি রাখবো ভেবে খোঁজ নিতে শুরু করলাম, এবং আশিষ সেনগুপ্তের কাছে ফটো সেশন করলাম। তিনি আমাকে মিডিয়ায় ট্রাই করতে বললেন। এক আপুর মাধ্যমে জাজ মাল্টিমিডিয়ায় গিয়ে ছবি জমা দিলে তারা আমাকে দেখে চলচ্চিত্রে কাজ করার প্রস্তাব দেন। শুরুটা এভাবেই, আকস্মিক।’ মাহির কাজের শুরুটা আকস্মিক হলেও প্রস্তুতিটা বেশ পরিপাটি। মাহি মনে করেন কাজের প্রতি দায়বদ্ধ থাকলে ফল আসবেই। প্রথম চলচ্চিত্রে চুক্তির প্রক্কালে মাত্র সাত দিনে নিজের ওজন বাড়িছেন তিনি। কাজের জায়গাটি বেশ গুরুত্বেও সাথেই নিয়েছেন এবং উপভোগও করছেন।

মাহি বলেন, ‘আসলে পোড়ামন ছবিতে বোঝা যাবে আমি কতোটা সফল। নতুন জুটি, ডিজিটাল চলচ্চিত্র ইত্যাদি নানা কারণে দর্শকরা আমার প্রথম ছবি নিয়ে আগ্রহ দেখিয়ে থাকতে পারে। আমি সবসময় দুটো জিনিস চিন্তা করি, খুব উঁচু কিংবা নিচু, মাঝামাঝি বলে কিছু নেই। প্রথম চলচ্চিত্রটি নিয়ে আমার খুবই উচ্চাশা ছিল। মুক্তির পর দেখলাম আমার সেই প্রত্যাশাও ছাড়িয়ে গেছে। এবার টেনশানে বুক কাঁপছে। ছবিটি খুবই ভালো হয়েছে।

এটি রোমান্টিক-ট্র্যাজেডি ছবি। আমার আগের ছবি দুটিও রোমান্টিক ছিল। তবে ‘পোড়ামন’ করতে গিয়ে মনে হয়েছে, আমি যেন এ ছবিটির জন্যই অপেক্ষা করছিলাম। বান্দরবানের একটি বাস্তব ঘটনার প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছে ছবির গল্প। ফলে আমরা যখন বান্দরবানে ছবিটির শুটিং করছিলাম, তখনই মনে হয়েছিল আমি বুঝি সত্যিই সেই মেয়েটি। ছবিতে আমি খুব সাদাসিদে, কম কথা বলা মেয়ে। প্রচ- আবেগী। যে তার ভালোবাসাকে আঁকড়ে ধরে মরতেও রাজি। যতটুকু আবেগ দিয়ে চরিত্রটি ফুটিয়ে তোলার প্রয়োজন আমি ততটাই দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আমার মনে হয়, ছবিটি দেখে দর্শকরা প্রেক্ষাগৃহ থেকে কাঁদতে কাঁদতে বের হবেন’।

ব্যক্তিজীবন এবং শিল্পীজীবন দুটোই আলাদাভাবে উপভোগ করেন মাহিয়া মাহি। চলচ্চত্রের বাইরে গুণী এই অভিনেত্রী খুবই সাদামাটা জীবন যাপন করেন। এবিষয়ে তার বক্তব্য ‘ব্যক্তিজীবন যদি কেউ হারিয়ে ফেলে একসময় সে নিজেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।’ তার ভাষায়, ‘আমি যখন শুটিং এ থাকি তখন নিজেকে নায়িকা মনে হয়। কাজের বাইরে আমিও একজন সাধারণ মানুষ, রাস্তায় ভীড় ঠেলেই চলাচল করি।’ আত্মসচেতন মাহিয়া মাহি গান শুনতে ও গাইতে পছন্দ করেন। অবসর পেলেই আড্ডায় মেতে উঠেন।

বৃষ্টির দিনে বাইকে চড়া ভীষণ উপভোগ করেন। আকাশছোঁয়া তারকা খ্যাতি অর্জন করা মাহি অসম্ভব বিনয়ী ও আবেগী। পোড়ামনের ‘পরী’ চরিত্রের মতোই। ছবিতে দুর্দান্তকাজ করেছেন মাহি।মুক্তির দিনে মুখিয়ে আছেন ‘পোড়ামন’ ছবির সাফল্যের আশায়। দর্শকদের আস্থা ও ভালোবাসা নিয়েই আগামি দিনে পথ চলতে চান বাংলা চলচ্চিত্রের প্রতিশ্রুতিশীল তারকা মাহি।

 

সম্পাদনা : পাভেল রহমান, বিভাগীয় সম্পাদক, বিনোদন

বাংলাদেশ স্থানীয় সময় : ০০০৫ ঘন্টা, ১৪ জুন, ২০১৩

পিআর/জেএ
 

Adil Travel Winter Sale 2ndPage

বিনোদন : সকল সংবাদ

আজকের এই দিনে
লোকে-যারে-বড়-বলে-বড়-সেই-হয়
আবদুল আউয়াল ঠাকুর : বাংলা প্রবচন হচ্ছে, আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যা বড় বলে বড় সেই হয়। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন হওয়ার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি কেন্দ্র করে এমন কিছু...