প্রচ্ছদ মানবাধিকার

গণহারে মামলার পর এবার তুফান গতিতে চার্জশিট

charjবিএ নিউজ: বিএনপি নেতাদের নামে গত আড়াই বছরে ‘গণহারে’ মামলা দায়েরের পর এবার চলছে দ্রুতলয়ে চার্জশিট দাখিলের তোড়জোড়। বস্তুত, মামলার জড়িয়ে বিএনপির বেশিরভাগ নেতাই এখন হয় কারাগারে নয়তো আদালতের বারান্দায় দৌড়ঝাঁপ করছেন। বহু নেতা আবার গ্রেপ্তার এড়াতে এখনো পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা হরতাল-অবরোধ-আন্দোলনের আড়াই বছরে সহিংসতার অভিযোগে সারা দেশে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীর নামে ১৫,০০০ এর বেশি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই মামলা দায়ের হয়েছে প্রায় ৪,৫০০।

এসব মামলা হয়েছে বিস্ফোরক দ্রব্য ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের বিভিন্ন ধারায়। মামলার আসামিদের বেশির ভাগই পলাতক।

তাই সরকারের প্রধান প্রতিপক্ষ দলটির আন্দোলন-সংগ্রামসহ প্রায় সব ধরনের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড মামলার জালে জড়িয়ে স্থবির হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, সম্প্রতি সরকারের ওপর মহল থেকে সহিংসতার মামলায় পুলিশকে দ্রুত চার্জশিট দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর পর থেকেই আদালতে চার্জশিট দাখিলের হিড়িক পড়েছে।

ঢাকার বিভিন্ন আদালতে বিচারাধীন মামলাসংক্রান্ত রেজিস্টার ঘেঁটে ও বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতাদের তথ্য মতে, ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে গত পাঁচ মাসে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বিএনপির ১,১০০ নেতাকর্মীর নামে শতাধিক মামলায় বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ বিভিন্ন আইনে চার্জশিট জমা দিয়েছে পুলিশ।

এ ছাড়া প্রায় প্রতিদিনই দাখিল হচ্ছে কোনো না কোনো মামলার চার্জশিট। ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের ৩০ মে পর্যন্ত বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ অন্যান্য আইনের মামলায় কমপক্ষে সাড়ে ৬০০ চার্জশিট আদালতে জমা দিয়েছে পুলিশ।

এক হিসাবে জানা যায়, ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগরীতে ৬৫৯টি মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতাদের দাবি, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার লক্ষ্যে এবং বিএনপিকে নেতাকর্মীশূন্য করাসহ দলটিকে গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে দূরে রাখার হীন চক্রান্ত থেকেই সরকার এসব কাজ করছে।

সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘মিথ্যা মামলা দিয়ে সরকার বিএনপির নেতাকর্মীকে চাপে রাখার পরিকল্পনা নিয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য বিএনপিকে সমূলে উৎপাটন করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করা। আবার তদন্তের নামে মিথ্যা চার্জশিট দিয়ে বিএনপিকে গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে দূরে রাখার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে সরকার। আমরা তা বাস্তবায়িত হতে দেব না। রাজপথের পাশাপাশি আমরা আইনি লড়াই চালিয়ে যাব।’


তবে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর শাহ আলম তালুকদার বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগেই বিএনপির নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বেশ কিছু মামলায় আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। আমরা আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ দিয়েই আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে পারব।’

আদালত ও ঢাকা মহানগর পুলিশ- ডিএমপির প্রসিকিউশন সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর আটটি জোনের মধ্যে ওয়ারী জোনের ৬৪টি, উত্তরা জোনের ২৫, লালবাগ জোনের ৩৮, মতিঝিল জোনের ১৩৪, মিরপুর জোনের ১৬২, গুলশান জোনের ৪৩ এবং রমনা জোনের ৯২টি মামলায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। এসব মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামির মধ্যে খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সালাহ উদ্দিন আহমেদ, রুহুল কবীর রিজভী ও বরকতউল্লাহ বুলুসহ বিএনপির বিপুলসংখ্যক কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন।


এর আগে গত ৬ মে যাত্রাবাড়ীতে বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে ডিবি পুলিশ। আবার ২০ মে বিশেষ ক্ষমতা আইনের আরেকটি মামলায়ও খালেদাসহ একই আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ। চলতি মাসের ২৮ জুন অভিযোগপত্র গ্রহণের শুনানি রয়েছে। প্রতিটি মামলায় খালেদা জিয়াকে পলাতক দেখিয়ে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনও করেছে পুলিশ।

গত জানুয়ারি মাসে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদুসহ কমপক্ষে ৬০০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে বিভিন্ন আইনে ১৫০টির বেশি মামলা হয়।

বিশেষ ক্ষমতা আইন ছাড়া অন্য আইনেও খালেদা জিয়াসহ বিএনপির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। এসব মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শতাধিক কেন্দ্রীয় নেতার বিচারও শুরু হয়েছে।

Adil Travel Winter Sale 2ndPage

মানবাধিকার : সকল সংবাদ

আজকের এই দিনে
লোকে-যারে-বড়-বলে-বড়-সেই-হয়
আবদুল আউয়াল ঠাকুর : বাংলা প্রবচন হচ্ছে, আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যা বড় বলে বড় সেই হয়। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন হওয়ার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি কেন্দ্র করে এমন কিছু...