সৌদিতে ভাগ্য নির্ধারণ হবে বিএনপি নেতাদের

বিএ নিউজ: bimpiসৌদি আরবে ভাগ্য নির্ধারণ হবে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাদের। পবিত্র ওমরাহ পালনের জন্য ৮ জুলাই থেকে সৌদি আরবে অবস্থান করবেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। ওইদিন লন্ডন থেকে মায়ের কাছে আসবেন তারেক রহমান। ইবাদত বন্দেগির ফাঁকে মা ও ছেলে একান্ত বৈঠক করবেন। বৈঠকে গত ৭ মে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক ও জামায়াত ছাড়তে নানা চাপের বিষয়ে খালেদা জিয়া ছেলে তারেক রহমানকে জানাবেন। দ্রুত মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবি আদায়ে আন্দোলনের ছকসহ দল পুনর্গঠনে নেতাদের নাম চূড়ান্ত করবেন। দলীয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া প্রতিবছরের মতো এবারও ওমরাহ পালনে যাবেন। ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে ওমরাহর দিনগুলো তিনি পালন করেন। তারেক রহমানসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হতে পারে। তবে দলের কোন বিষয়ে আলোচনা হবে বলে আমার মনে হয় না। দলীয় সূত্র জানায়, সৌদি বাদশার রাজকীয় অতিথি হিসেবে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ৮, ৯ ও ১০ জুলাই পবিত্র মদিনা মুনাওয়ারায় অবস্থান করে মসজিদে নববীতে নামাজ আদায় ও মহানবী (সা.)-এর রওজা শরিফ জিয়ারত করবেন। ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর পরে প্রথমবারের খালেদা জিয়ার বড় ছেলের সঙ্গে সাক্ষাৎ হচ্ছে। এর আগে গত বছরের ২০ জুলাই দুবাইতে সাক্ষাৎ হয়েছিল জিয়া পরিবারের। পবিত্র মদিনা মুনাওয়ারায় ইবাদত সম্পন্ন করে ১১ জুলাই ওমরা পালনের উদ্দেশে মক্কা মোকাররমায় পৌঁছার কথা রয়েছে তাদের। সেখানে ১১, ১২ ও ১৩ জুলাই অবস্থান করে পবিত্র ওমরা পালন করবেন।

১৩ জুলাই মক্কা মোকাররমায় পবিত্র লাইলাতুল কদরের রাতে নামাজ ও ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে কাটাবেন। সৌদিতে অবস্থানকালে রয়েল প্যালেসে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান একাধিকবার বৈঠক করবেন। ১৪ জুলাইয়ের পর খালেদা জিয়া দেশের উদ্দেশে এবং তারেক রহমান যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে সৌদি আরব ছাড়বেন।
 

খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, বৈঠকে দলের যষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের দিনক্ষণ নির্ধারণ, দলের স্থায়ী কমিটি, জাতীয় নির্বাহী কমিটি, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলে কারা আসবেন তাদের নাম চূড়ান্ত করবেন। ঢাকা মহানগর কমিটি ভেঙে দিয়ে উত্তর ও দক্ষিণ দুইভাগে বিভক্ত করার সিদ্ধান্ত নেবেন। মেয়াদ উত্তীর্ণ যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, কৃষক দল, ওলামা দল, মুক্তিযোদ্ধা দল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবী দল ও জাসাসের কমিটি ভেঙে সাবেক ছাত্রনেতাদের এসব সংগঠনের দায়িত্ব দেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

সূত্রমতে, আন্দোলনে নেতাদের ভূমিকা জানতে গত ১৪ মে দলের দফতর থেকে তৃণমূলে চিঠি পাঠানো হয়। চিঠির জবাবের ভিত্তিতে একজন সহ-দফতর সম্পাদকের নেতৃত্বে গুলশান অফিসের কর্মকর্তারা তালিকা করে খালেদা জিয়ার কাছে দিয়েছেন। এদিকে লন্ডনে অবস্থানরত তারেক রহমানও তার নিজস্ব লোক দিয়ে আরেকটি তালিকা করেছেন। দুই তালিকা সামনে রেখে সিদ্ধান্ত নেবেন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। সূত্র জানায়, আগামী দিনের আন্দোলন সফল করতে ব্যর্থ নেতাদের দলীয় পদ থেকে সরিয়ে দিতে অনড় মা ও ছেলে। বিষয়টি জানতে পেরে অনেকে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করতে খালেদা জিয়ার সঙ্গে একাধিকবার দেখা করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। কেউ কেউ লন্ডনে গিয়ে তারেক রহমানকে ম্যানেজ করারও চেষ্টা করছেন। তবে এখন পর্যন্ত সাক্ষাৎ পাননি কেউ। শেষ চেষ্টা হিসেবে অনেকে সৌদি যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।