ভারতের চাপেই মোস্তাফিজকে জরিমানা!

india6বিএ নিউজ: বাংলাদেশ-ভারত সিরিজের প্রথম ম্যাচটি শেষ হয়ে গেছে দুইদিন আগেই। তবে শেষ হয়েও এই ম্যাচ যে এত বিতর্ক ছড়াবে তা ভাবতে পারেননি কেউই। অবশ্য এই বিতর্কের অনেকটাই আবর্তিত হচ্ছে 'ক্যাপ্টেন কুল' খ্যাত ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে ঘিরে। বৃহস্পতিবারের ম্যাচে ২৫তম ওভারে বাংলাদেশি তরুণ পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে কাঁধ দিয়ে ধাক্কা দিয়ে জরিমানা গুনেছেন ধোনি। কিন্তু তার সঙ্গে জরিমানা করা হয়েছে মোস্তাফিজকেও। আইসিসি'র সিদ্ধান্তে নয়, বরং ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের চাপে পড়েই ধোনির পাশাপাশি ম্যাচ রেফারি অ্যান্ডি পাইক্রফট মোস্তাফিজকেও জরিমানা করেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের প্রভাবশালী দৈনিক অানন্দবাজার।

'রাত দু’টোতেই অভিযোগের বিরুদ্ধে লড়ার যুদ্ধে নেমে পড়লেন ধোনি' শিরোনামে আনন্দবাজারে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে শনিবার জানানো হয়, নাটকের সূত্রপাত বৃহস্পতিবার রাত ২টায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, 'ম্যাচে হেরে মিরপুর স্টেডিয়াম ছেড়ে ততক্ষণে অভুক্ত অবস্থায় হোটেল ফিরে গেছে ভারতীয় দল। আচমকাই রাত ২টা নাগাদ ধোনিকে ডেকে পাঠান ম্যাচ রেফারি অ্যান্ডি পাইক্রফট। ভারত অধিনায়ক উপস্থিত হলে তাকে বলে দেওয়া হয়, আম্পায়াররা তোমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন যে, ম্যাচে মুস্তাফিজুরকে তুমি ধাক্কা মেরেছ। যা 'লেভেল টু' অপরাধ এবং তিনটে রাস্তা ফেলে দেওয়া হয় ধোনির সামনে।

১) দোষ স্বীকার করে নেওয়া। যা হলে ম্যাচ ফির পঞ্চাশ শতাংশ জরিমানা।

২) দোষ স্বীকার করে শাস্তি কমানোর আবেদন করা।

৩) অভিযোগকে চ্যালেঞ্জ করা। কিন্তু সেক্ষেত্রে অভিযোগ প্রমাণ হলে দুই ম্যাচের নির্বাসন বা একশো শতাংশ ম্যাচ ফি কেটে নেওয়ার যে কোনও একটি শাস্তি হবে।'

আনন্দাবাজারে বলা হয়, এই কথা শুনেই নাকি উত্তেজিত হয়ে পড়েন ধোনি। ঘনিষ্ঠদের কাছে বলতে থাকেন, তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে মোটেও এটা করেননি। দুই ভাবে ব্যাপারটা এড়ানো যেত। তিনি নিজে দাঁড়িয়ে পড়তে পারতেন কিন্তু তাতে রান আউট হতে হতো। নইলে মুস্তাফিজুরকে বাঁচাতে গিয়ে অন্য দিক দিয়ে দৌড়তে পারতেন। সেটা হলে নন-স্ট্রাইকার প্রান্তে থাকা রায়নার সঙ্গে ধাক্কা লাগতে পারত। ধোনি নাকি আরও বলেন, তার কাঁধ, কনুইয়ের অবস্থান দেখলেই বোঝা যাবে এটা ইচ্ছাকৃত নয়। তাই অভিযোগের বিরুদ্ধে তিনি লড়বেন। কারণ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখলেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে। অভিযোগকে চ্যালেঞ্জ করছেন মর্মে ফর্মে স্বাক্ষর করে ম্যাচ রেফারির কাছে পাঠিয়েও দেওয়া হয়।

যার পর দুটি ঘটনাই নাকি সমান্তরাল ভাবে চলতে থাকে। ম্যাচ রেফারি এবং আম্পায়াররা ঘটনার ভিডিও ফুটেজ নিয়ে রাতেই বসে পড়েন। বারবার চালিয়ে দেখা হয় ভারতীয় ইনিংসের পঁচিশ নম্বর ওভার। যেখানে মুস্তাফিজুরকে সজোরে ধাক্কা মেরে রান নিতে যাচ্ছেন ধোনি।

আরও লেখা হয়েছে, 'ভারতীয় শিবিরে আবার বৈঠকের পর বৈঠক চলতে থাকে। শুক্রবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে নাস্তার টেবিলে অালোচনায় বসেন অধিনায়ক ধোনি, টিম ডিরেক্টর রবি শাস্ত্রী, সহ অধিনায়ক ভিরাট কোহলি এবং টিমের প্রশাসনিক ম্যানেজার বিশ্বরূপ দে। সেখানে নাকি সবচেয়ে উত্তেজিত ছিলেন ভিরাট কোহলি। তিনি নাকি বলতে থাকেন, দোষ যে করলো সে শাস্তি পাচ্ছে না। যে করেনি, সে পাচ্ছে।

ওখানেই নাকি ম্যাচ রেফারির ঘরে শুনানির জন্য ঢোকার আগের পরবর্তী প্ল্যান অব অ্যাকশনও ঠিক করে ফেলা হয় ভারতীয় অধিনায়কের। পাইক্রফটের সামনে ঘটনার অ্যাকশন রিপ্লে ধোনি করে দেখাবেন নিজের, বোলারের ও রায়নার। শাস্ত্রী তুলবেন বোলারের অবস্থানের ব্যাপারটা। আর টিম ম্যানেজার আইনি প্যাঁচে ফেলবেন পাইক্রফটকে।

এরপর ভারতের ছক বাঁধা পথেই সব চলতে থাকে। ধোনি ঘটনার সময় নিজের কাঁধ, কনুই, মাথার অবস্থান সব কিছুর পুনরাবৃত্তি করে বোঝাতে থাকেন কেনও এটা ইচ্ছাকৃত নয়। শাস্ত্রী বলেন, বোলার কেনও ডেঞ্জার জোনে ওভাবে দাঁড়িয়ে থাকবে? ফলো থ্রু অনেক আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল। বলও তার ধারে কাছে ছিলো না। টিম ম্যানেজার বিশ্বরূপ যুক্তি দেন, কোনও গাড়ি দুর্ঘটনা ঘটলে তাকে দুভাবে দেখা যেতে পারে। চালকের দোষে সেটা ঘটেছে। নইলে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজেই গাড়ির সামনে চলে এসেছে। সব সময় তাই চালকের দোষেই হবে এমন নয়।

নানাবিধ যুক্তিতর্কের পর ম্যাচ রেফারি পাইক্রফট নাকি সুর নরম করেন। কিন্তু আইসিসির কোড অব কন্ডাক্টেই অনুযায়ী, ম্যাচ চলাকালীন ধাক্কাধাক্কি হলে জরিমানা অবধারিত। তাই ধোনির ম্যাচ ফির পঁচাত্তর শতাংশ কেটে নেওয়া হয়। তবে তাতেও বাগড়া বসায় ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। তারা বলেন, ধোনি দোষী হলে মুস্তাফিজুরও সম্পূর্ণ নির্দোষ নন। ভারত ঠিক করে ফেলে বাংলাদেশকে যদি শুনানিতে না ডাকা হয়, তা হলে আইসিসির কাছে রায়ের বিরুদ্ধে আবেদন করা হবে। কিন্তু যুদ্ধে মহানাটকীয় মোড় এনে ম্যাচ রেফারি ডেকে পাঠান মুস্তাফিজুরকে। অথচ ম্যাচের অাম্পায়ারদের রিপোর্টে তার নামই ছিল না! কিন্তু ভারতের শুনানির পরে, মুস্তাফিজুরকে ডেকে তারও পঞ্চাশ শতাংশ ম্যাচ ফি কেটে নেওয়া হয়।'

এই ঘটনায় বাংলাদেশের অবস্থান সম্পর্কে বলা হয়, ''বাংলাদেশ যে সেটা খুব ভাল ভাবে নেয়নি বলাই বাহুল্য। শুনানি শেষ হয়ে যাওয়ার পরে টিম হোটেলে সাংবাদিক সম্মেলন করে বাংলাদেশ বোর্ড প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন বলেন, 'এটা মাঠের ব্যাপার। তবে যা হলো সেটা আমাদের পছন্দ নয়।''

অবশ্য টিম ম্যানেজমেন্ট ভারতীয় অধিনায়কের পক্ষ নিলেও দেশটির গণমাধ্যম কথা বলছে ভিন্ন সুরেই। অানন্দবাজার তাদের প্রতিবেদনে লিখেছে, জরিমানার পর ভারত শুক্রবার ড্রেসিংরুমে শাস্ত্রীর মৃদু শাসনের বাইরে ম্যাচে হারের ময়নাতদন্ত নিয়ে এগোতে পারেনি। বরং অধিনায়কের সম্মান বাঁচাতেই গোটা দিন বেরিয়ে যায়। কিন্তু পুরো বাঁচল তো? বাংলাদেশের গণমাধ্যম শুক্রবার বাংলাদেশের জয়, মাশরফি মর্তুজার প্রকাশ্যে ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া, মুস্তাফিজুরের দোষ স্বীকার নিয়ে ব্যস্ত থাকায় বিপন্ন হতে পারত ধোনির ভাবমূর্তি।

Adil Travel Winter Sale 2ndPage

খেলা : সকল সংবাদ

আজকের এই দিনে
স্মরণ-অবিস্মরণীয়-শহীদ-জিয়া
মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন: একেবারেই অপরিচিত ব্যক্তি শহীদ জিয়াউর রহমান কেবল অসীম দেশপ্রেম, অদম্য ইচ্ছাশক্তি, অকুতোভয় মানসিকতা, উদারহণযোগ্য  সততা, সর্বোপরি বাংলাদেশের...