প্রচ্ছদ আমেরিকা

বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির আলোচনা সভায় বক্তারা একুশে আমাদের চেতনাকে শানিত করে

নিউইয়র্ক: একুশের প্রথম প্রহরে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক দিয়ে শহীদকে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রবাসের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন “বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতি, যুক্তরাষ্ট্র ইনক”। সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ দুলাল ও সাধারণ সম্পাদক মো: জাহাঙ্গীর আলম সরকারের নেতৃত্বে গত ২০ IMGss 7021ফেব্রুয়ারী সোমবার জ্যাকসন হাইটসে অস্থায়ী শহীদ মিনারে ভাষা শহীদেরকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এর আগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালন উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় খাবারবাড়ি রেষ্টুরেন্টে। সভায় সভাপতিত্ব করেন সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ দুলাল। পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মো: জাহাঙ্গীর এ সরকার। এতে মহান একুশের ইতিহাস ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচন কমিশনার ও বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইউনুস সরকার, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক প্রচার ও গণসংযোগ সম্পাদক মফিজুল ইসলাম ভূইঁয়া রুমি, সাবেক সমাজ কল্যাণ সম্পাদক কাজী তোফায়েল ইসলাম, বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতি, যুক্তরাষ্ট্র ইনকের সহ সাধারণ সম্পাদক দুলাল চন্দ্র দেবনাথ, কোষাধ্যক্ষ বাছেদ ভূইঁয়া, দপ্তর সম্পাদক-জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক মো: এ সিদ্দিক পাটোয়ারী, μীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ইকবাল খান, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবুল খায়ের আকন্দ, কার্যকরী সদস্য মো: ইউনুস সরকার, হাতেম আলী মারোয়ান, হাজী মো: নুরুল ইসলাম, মো: মনিরুল আলম দিপু, মো: মিজানুর রহমান, মো: আলী আকবর কিশোর প্রমুখ।
আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, একুশ অমরত্ব লাভ করেছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতির মাধ্যমে। আজকের এই দিনে মায়ের ভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলা মায়ের যে সকল সূর্য সন্তানরা রাজপথে বুকের রক্ত ঢেলে দিয়ে ছিল তাদের প্রতি জানাচ্ছি পরম শ্রদ্ধা ও অসীম কৃতজ্ঞতা।
তারা বলেন, বিশ্বের মধ্যে শুধুমাত্র আমরাই একমাত্র জাতি যারা ভাষা নিয়ে এত গর্ব করতে পারি। মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য বাঙালির আত্মত্যাগের কাহিনী পৃথিবীর সবাই এখন জানে। একুশ আমাদের জাতির চেতনা ও গৌরবের উৎস। একুশ আমাদের অহঙ্কার। আমাদের সামগ্রিক পরিচয়। পৃথিবীতে বাঙালি ছাড়া দ্বিতীয় কোনো জাতি নেই যে জাতি ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে।
তারা বলেন, ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি মায়ের ভাষা বাংলা রক্ষার জন্য জীবন দিল রফিক, সালাম, বরকত, জব্বারসহ নাম না জানা আরো কয়েকজন বীর। রচিত হলো মানবজাতির জন্য এক বিরল ইতিহাস। বাঙালি জাতি মাথা উচু করে দাঁড়াল সবার সামনে। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বাঙালির গন্ডি ছাড়িয়ে এই দিবসের অংহকার এখন বিশ্বের ভাষাভাষীর প্রতিটি মানুষের। সভা শেষে ভাষা শহীদদের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

Adil Travel Winter Sale 2ndPage

আমেরিকা : সকল সংবাদ

আজকের এই দিনে
লোকে-যারে-বড়-বলে-বড়-সেই-হয়
আবদুল আউয়াল ঠাকুর : বাংলা প্রবচন হচ্ছে, আপনারে বড় বলে বড় সেই নয়, লোকে যা বড় বলে বড় সেই হয়। সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন হওয়ার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি কেন্দ্র করে এমন কিছু...